• ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ৯ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

ফ্রান্সে মহানবী সা. এর অবমাননার প্রতিবাদে তেমুখী-বাসট্যান্ড এলাকায় বিশাল মিছিল

Daily Jugabheri
প্রকাশিত অক্টোবর ৩১, ২০২০
ফ্রান্সে মহানবী সা. এর অবমাননার প্রতিবাদে তেমুখী-বাসট্যান্ড এলাকায় বিশাল মিছিল

সিলেট সদরের তেমুখী-বাসট্যান্ড এলাকায় স্থানীয় মুসল্লিরা ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় মহানবী সা. এর অবমাননা ও মুসলিম নির্যাতনের প্রতিবাদে তৌহিদী জনতার ব্যানারে গতকাল এক বিশাল বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বেফাকুল মাদারিস সিলেট সদরের সভাপতি ও মুখলিছিয়া মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা গোলাম রব্বানির সভাপতিত্বে ও জামেয়া আবুবকর সিদ্দিক রা. এর সিনিয়র শিক্ষক, শেখপাড়া জামে মসজিদের খতিব লেখক শামসীর হারুনুর রশীদ এর উপস্থাপনায় মিছিল পরবর্তী প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন হায়দরপুর শাহী জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব

মাওলানা আব্দুল মালিক হাবিবি, আলহাজ সুন্দর আলী জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা নুমান আহমদ, পীরপুর জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা দেলোয়ার হোসাইন, সাহেবেরগাঁও জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা আব্বাস উদ্দিন, কুমারগাঁও বাসট্যান্ড জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা হাবিবুল্লাহ, খালিগাঁও জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা রেজাউল করিম, জামেয়া ইসলামিয়া আবুবকর সিদ্দিক রা.’ শিক্ষক মাওলানা আব্দুল জলিল, হাফিজ মাওলানা ফরিদ অহমদ, শেখপাড়া জামে মসজিদের কেশিয়ার শেখ মোঃ লুকমান আহমদ ও কুমারগাঁও জামে মসজিদের কেশিয়ার মোঃ বেলাল আহমদ প্রমুখ।

প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় মহানবী সা. এর অবমাননাকর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ ও মুসলিম নির্যাতন পৃথিবীর দু’শকোটি মুসলমান তা মেনে নিতে পারে না। ফ্রান্সের সরকার খুব দ্রুত বিশ্বের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। বাংলাদেশ সরকার সংসদে ফ্রান্সের এই ধৃষ্টতার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ করার আহ্বান জানাচ্ছি। মুসলিম বিশ্বকে ফ্রান্সিক পণ্য বর্জনের আহ্বান জানানো হয়েছে।

বক্তারা আরো বলেন, বিশ্বে আজ যে জঙ্গিবাদ বনাম ইসলাম বিদ্বেষ দেখা যাচ্ছে, তা এমন ছিল না। মূল লড়াই ছিল পুঁজিবাদ বনাম জনতার। কিন্তু ক্ষমতাসীন পেশিশক্তিগুলো অপকৌশল আর প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে জনগণের দৃষ্টি অন্যদিকে ফেরাতে ব্যর্থতার জায়গায় আবিষ্কার করেছেন মুসলিম সমস্যা। তুলেছেন জঙ্গিবাদ জু জু! এতেই তারা রাজনৈতিক সাফল্য পাচ্ছেন অভাবনীয়! আর এই কাজটা করছেন তারা মিডিয়ার পেছনে টাকা খরচের মাধ্যমে।

আজকের ফ্রান্সে যে ইহুদিবিদ্বেষ তথা অ্যান্টিসেমেটিজমের ভাইরাস ছিল, সেটারই জায়গা নিচ্ছে ইসলামবিদ্বেষ। যে ফ্রান্স ইহুদিদের তাড়িয়ে সেক্যুলার হয়েছিল, তাদের সেই সেক্যুলারিজম এখন ইহুদি কৌশলে মুসলমানদের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে পড়েছে। বিজ্ঞপ্তি

সংবাদটি শেয়ার করুন