• ৩রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ২২শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

গৃহ ও ভূমিহীনদের জন্য এমপি শামীমা শাহরিয়ারের জমি দান

Daily Jugabheri
প্রকাশিত মে ১১, ২০২১
গৃহ ও ভূমিহীনদের জন্য এমপি শামীমা শাহরিয়ারের জমি দান

বিন্দু তালুকদার, সুনামগঞ্জ :::::
বিভিন্ন এলাকার ক্ষমতাসীন জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে যখন সরকারি ও ব্যক্তি মালিকানাধীন ভূমি দখলের অভিযোগ ঠিক তখনই গৃহ ও ভূমিহীনদের ঘর নির্মাণের জন্য ৫০০ শত জমি দান করে নজির সৃষ্টি করলেন সুনামগঞ্জ-সিলেট সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার ফেনারবাঁক গ্রামের বাসিন্দা অ্যাড. শামীমা শাহরিয়ার।
জানা যায়, নারী সংসদ সদস্য অ্যাড. শামীমা শাহরিয়ার জামালগঞ্জ উপজেলার ফেনারবাঁক ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের কাছে চান্দপুর মৌজার ৭১ নং জে.এল এর ২৬৫৬ খতিয়ানের ৯০১০ নং দাগে ৫০০ শতক ভূমি সরকারকে দান করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অধীনে গৃহ ও ভূমিহীনদের ঘর নির্মাণে আশ্রয়ন প্রকল্পের জন্য এই জমি দান করা হয়েছে। গত ৩ মার্চ জামালগঞ্জ উপজেলা সাবরেজিস্ট্রি অফিসে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসকের নামে ৫০০ শতক ভূমি দলিল করে দিয়েছেন এমপি শামীমা শাহরিয়ারের শ্বাশুড়ী ফেরদৌসী আমজাদ চৌধুরী। দলিল নং-৬২১/২০২১ ইং, তারিখ-৩/৩/২০২১ ইং। দানকৃত জমিতে আশ্রয়ন প্রকল্পের নিয়ম অনুযায়ী ২ শতক করে রাজাপুর, ফেনারবাঁক, শান্তিপুর, বিজয়নগর, ইনাতনগরসহ আশপাশের গ্রামের দুই শতাধিক গৃহ ও ভূমিহীন পরিবার মাথা গোজার ঠাই পাবেন। দানকৃত ওই জমির মূল্য প্রায় ১২ লাখ টাকা। জমি দেওয়ার পাশাপাশি ওই জমিতে মাটিভরাট করতে নিজের বরাদ্দ থেকে ১৫ লাখ টাকাও দিয়েছেন এমপি শামীমা শাহরিয়ার। বাড়ি তৈরি করতে সেখানে মাটি ভরাটের কাজ চলছে। মাটি ভরাটের কাজ তদারকি করছে জামালগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন। সরকারকে ৫০০ শতক জমি দান করায় এমপি শামীমা শাহরিয়ারকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন এলাকার লোকজন। ওই জমিতে বাড়ি-ঘর নির্মাণের জন্য আশ্রয়ন প্রকল্পের ১৬০ মে. টন গম বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।
রাজাপুর গ্রামের বাসিন্দা রাসেল মিয়া বলেন,‘ অনেক মানুষ আছে যারা বাড়ি-ঘরের অভাবে পরের বাড়িতে থাকেন। এমপি সাবের দান করা এই জায়গাতে সরকারি ঘর তৈরি করলে মানুষের অনেক বড় উপকার হবে। অন্তত ৫/৭ গ্রামের ভূমিহীনরা এখানে থাকতে পারবেন। ’
ফেনারবাঁক গ্রামের বাসিন্দা মোজ্জামেল হোসেন চৌধুরী বলেন,‘ হাওর এলাকার বসতবাড়ি করা খুব কঠিন কাজ। কারণ গরিব মানুষরা বাঁশ-খড়-কুটো দিয়ে ঘর-বাড়ি তৈরি করেন। শামীমা এমপি’র দেওয়া জায়গায় ঘর-বাড়ি তৈরি করে গরিব মানুষকে দিলে অনেক উপকার হবে। এই কাজের জন্য এমপি মহোদয়কে অনেক ধন্যবাদ। কারণ মানুষ এমপি-মন্ত্রী হলে শুধু খায়। কিন্তু শামীমা শাহরিয়ার উল্টো সরকারকে অনেক জমি দান করেছেন। ’
ফেনারবাঁক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু তালুকদার বলেন,‘এলাকার ভূমিহীনদের ঘর নির্মাণ করে দেওয়ার জন্য এমপি শামীমা শাহরিয়ারের পরিবার ৫ একর (৫০০ শতক) জমি দান করেছেন। সেই জমিতে বসতভিটা তৈরি করতে মাটি ভরাটের কাজ চলছে। এখানে অন্তত দুই-আড়াইশত ভূমিহীন পরিবার থাকতে পারবে। ’
জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত দেব বলেন,‘ গৃহ ও ভূমিহীনদের ঘর নির্মাণ করে দেওয়ার লক্ষ্যে আশ্রয়ন প্রকল্পের জন্য মাননীয় সংসদ সদস্য শামীমা শাহরিয়ার নিজেদের ৫০০ শতক জমি দলিল করে সরকারকে দান করেছেন। ওই জমিতে মাটি ভরাট করতে এমপি মহোদয় নিজের বরাদ্দ থেকে ১৫ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। এছাড়া আশ্রয়ন প্রকল্প থেকে ১৬০ মে. টন গম বরাদ্দ হয়েছে। ঘর নির্মাণের জায়গায় মাটি ভরাটের কাজ চলছে। ’
সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন,‘ মাননীয় সংসদ সদস্য শামীমা শাহরিয়ার আশ্রয়ন প্রকল্পের জন্য সরকারকে ৫০০ শতক জমি দান করেছেন। ওই জমিকে বসত-বাড়ির উপযোগি করতে মাটি ভরাটের কাজ চলছে। প্রকল্প থেকে ১৬০ মে. টন বরাদ্দ হয়েছে। মাটি ভরাট ও দুরমুজের কাজ শেষ হওয়ার পর ঘর নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হবে।’
সুনামগঞ্জ-সিলেট সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. শামীমা শাহরিয়ার বলেন,‘ আমাদের ফেনারবাঁক গ্রাম ও আশেপাশে বাড়ি করার উপযোগী সরকারি জমি কম। মুজিব বর্ষের উপহার হিসাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া ঘর থেকে অনেক গৃহহীন পরিবার বঞ্চিত হচ্ছে। তাই এলাকার গৃহহীনদের ঘর তৈরির জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আহবানে সাড়া দিয়ে আমরা এই ভূমি দান করেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে আমি অনেক কিছুই পেয়েছি কিন্তু তাঁকে কিছু দিতে পারিনি। তিনি আমাকে এমপি বানিয়েছেন এই কৃতজ্ঞতার নিদর্শন হিসাবে আমার পরিবার বিশেষ করে আমার শ্বাশুড়ি এই সম্পদ দান করেছেন। যাতে আমার এলাকার গৃহহীন লোকেরা গৃহ ও বাড়ি পায়।’

সংবাদটি শেয়ার করুন