• ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ৯ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

রিমান্ডে আকবর

Daily Jugabheri
প্রকাশিত নভেম্বর ১০, ২০২০
রিমান্ডে আকবর

সজল ছত্রী :::
সিলেট নগরের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে রায়হান আহমদ নিহতের ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত পুলিশের বহিষ্কৃত উপ পরিদর্শক আকবর হোসেন ভূঁইয়ার ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে সিলেট চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতের বিচারক মো. আবুল কাশেম এ রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেন। এর আগে এসআই আকবরকে তাকে আদালতে প্রাঙ্গণে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। আদালত সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন বলে জানান পিবিআই সিলেটের পুলিশ সুপার খালেদ উজ জামান।
এ মামলায় এ নিয়ে মোট ৪ জনকে গ্রেফতার ও রিমান্ডে নেওয়া হল। তবে আগে রিমান্ডে নেওয়া তিনজনের কাছ থেকে বিশেষ কোনো তথ্য উদ্ধার করতে পারেনি পিবিআই। প্রথম দফা ৫ দিনের রিমান্ড শেষে আদালতে জবানবন্দি দিতে রাজি না হওয়ায় কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাস ও হারুনুর রশীদকে দ্বিতীয় দফা আরো ৩ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হলেও তারা নির্যাতনের দায় স্বীকার করেননি। অপর ব্যক্তি এএসআই আশেক এলাহী ৫ দিনের রিমান্ড চলাকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হন। তিনিও দায় স্বীকার করেননি।
পুলিশ হেফাজতে মৃত্যুর এই মামলার তদন্ত শুরু থেকেই হোঁচট খাচ্ছে। মামলা তদন্তে প্রধান বাধা ছিল এসআই আকবর গ্রেফতার না হওয়া। তবে দু সপ্তাহের মধ্যেই মামলার তদন্ত রিপোর্ট জমা দেওয়া হবে বলে গত ২ নভেম্বর হাইকোর্টকে জানিয়েছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জনারেল নওরোজ রাসেল চৌধুরী। উল্লেখিত সময় শেষ হচ্ছে আগামী ১৬ নভেম্বর। তখনো রিমান্ডে থাকছেন আকবর। স্বাভাবিকভাবেই শেষ হচ্ছে না তদন্ত।
এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে পিবিআই সিলেটের পুলিশ সুপার খালেদ উজ জামান জানান, দ্রুত সময়ের মধ্যেই তদন্ত শেষ করা হবে। তবে আকবর গ্রেফতার ও রিমান্ডে নেওয়ার কারণে কিছুটা দেরি হতে পারে।
নাম জানা যায়নি সেই সিনিয়র কর্মকর্তার :
রায়হানের মৃত্যুর দিনই ঘটনা তদন্তে মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (ডিসি-উত্তর) আজবাহার আলী শেখের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা ছিলেন, এসএমপির অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি ক্রাইম দক্ষিণ) এহসানুদ্দিন চৌধুরী, এডিসি ক্রাইম উত্তর শাহরিয়ার আল মামুন ও সহকারী কমিশনার (এসি এয়ারপোর্ট) প্রভাশ কুমার সিং। তদন্তে ফাঁড়িতে নির্যাতন ও হত্যার বিষয়টি সামনে আসার পর বরখাস্ত হন ফাঁড়ি ইনচার্জ আকবর হোসেন ভূঁইয়াসহ ফাঁড়ির চার পুলিশ সদস্য। ফাঁড়ির আরো তিন সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়। কিন্তু সিনিয়র কর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদ আর নজরদারির মধ্যেই পালিয়ে যান প্রধান অভিযুক্ত ফাঁড়ি ইনচার্জ আকবর হোসেন ভূঁইয়া। সেসময় তাকে পালানোর ক্ষেত্রে সহযোগিতার অভিযোগ ওঠে পুলিশের বিরুদ্ধে। মামলার প্রথম তদন্তকারী কর্মকর্তা সিলেট কতোয়ালি থানার এসআই আবদুল বাতেনও আকবরকে আটকের বিষয়ে গুরুত্ব দেননি।
বিষয়টি তদন্তে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে এআইজি (ক্রাইম অ্যানালাইসিস বিভাগ) মুহাম্মদ আয়ুবের নেতৃত্বে একটি দল সিলেট সফর করেন। এই তদন্ত বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি। তবে এর পর বরখাস্ত করা হয় বন্দরবাজার ফাঁড়ির দ্বিতীয় ইনচার্জ হাসান উদ্দিনকে।
এতোসবের পরও সিনিয়র কর্মকর্তাদের প্রশ্রয়ে বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িকে অপরাধের ঘাঁটি বানিয়ে ফেলা আকবরের নেপথ্যশক্তির খোঁজ মেলেনি এখনো। সোমবার গ্রেফতারের আগে আকবরের দুটি ভিডিও ভাইরাল হয়। তাতে দেখা যায় আকবর দাবি করছেন, তাকে পালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন সিনিয়র কর্মকর্তারা। আকবরের দাবি মতে, দু মাস পালিয়ে থাকলে বিষয়টি হ্যান্ডেল করে ফেলবেন বলে আশ^স্ত করেন তারা। তবে কোনো তদন্তেই এই সিনিয়র কর্মকর্তাদের নাম ওঠে আসেনি।
এ বিষয়ে পিবিআই সিলেটের পুলিশ সুপার খালেদ উজ জামানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রিমান্ডে আকবরের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে এই অভিযোগ তদন্ত করে দেখা হবে।
বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িটি মহানগর পুলিশের কতোয়ালি থানার অধীন। থানার অধীনে আকবরের সিনিয়র কর্মকর্তা হচ্ছেন কতোয়ালি থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত), ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ও সহকারী কমিশনার (এসি)। তবে অনেকের মতে, পরামর্শদাতা এই ‘সিনিয়র কর্মকর্তা’ আরো উপরের কেউ।
জেলা পুলিশের তৎপরতাতেই আটক হয় আকবর :
সোমবার আকবরকে গ্রেফতারের পর সিলেটের পুলিশ সুপার মো. ফরিদ উদ্দিন ও সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মো. মফিজ উদ্দিন দাবি করেন, কানাইঘাট সীমান্ত থেকে আকবরকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ভারতে পালিয়ে যাবার সময় তাকে আটক করা হয় বলে দাবি করা হলেও সাংবাদিকদের বারংবার প্রশ্নে পুলিশ সুপার বলেন, এমনো হতে পারে যে সে ভারতের সীমান্ত এলাকায় কোথাও আত্মগোপনের পর দেশে প্রবেশের চেষ্টার সময় আটক হয়। কিন্তু পুরো বিষয়টিই করা হচ্ছিল গোয়েন্দা তৎপরতা ও বিশ^স্ত সোর্সের মাধ্যমে।
ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে আকবরকে আটককারী খাসিয়া সম্প্রদায়ের লোকজনকে হিন্দিঘেঁষা সিলেটি ভাষায় কথা বলতে দেখা যায়। তাকে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলেও ভয় দেখানো হয়। সেজন্য ধারনা করা হচ্ছে ভিডিওটি ভারত সীমান্তের। সেখানে আকবরকে বেঁধে নিয়ে আসতে উদ্যোগি এক লোককে সিলেটি ভাষায় কথা বলতে দেখা যায়। তাকে কয়েকবার ‘ওসি’ শব্দটিও উচ্চারণ করতে শোনা যায়। স্থানীয়ভাবে জানা যায়, এই ব্যক্তি পুলিশের সোর্স। ভারত সীমান্তে পালিয়ে থাকা অবস্থায় সোর্সের মাধ্যমে ও খাসিয়াদের সহযোগিতায় কৌশলে ও ভয় দেখিয়ে বাংলাদেশ সীমান্তে নিয়ে এসে আকবরকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
আকবরকে গ্রেফতারে পুলিশের নানামুখি তৎপরতা ছিল দাবি করে পুলিশ সুপার বলেন, তাকে বিশ^স্ত বন্ধুদের মাধ্যমে আটক করা হয়। সে নানা জায়গায় পালিয়ে থাকার চেষ্টা করেছিল। যখন যেভাবে সম্ভব তার আশ্রয়দাতাদের আমরা সনাক্ত করার চেষ্টা করেছি। এই কৌশল কাজে লাগিয়েই আমরা কানাইঘাট সীমান্ত থেকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হই। আমাদের মূল লক্ষ্য ছিল আকবরকে দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রেফতার করে বিচারের মুখোমুখি করা।

সংবাদটি শেয়ার করুন