• ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ , ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ২০শে জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

গোবিন্দগঞ্জ চত্ত্বরে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে সওজ’র বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ

Daily Jugabheri
প্রকাশিত মার্চ ৪, ২০২১
গোবিন্দগঞ্জ চত্ত্বরে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে সওজ’র বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :
সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক মহা সড়কের গোবিন্দগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধা চত্ত্বর এর আশপাশে সড়ক ও জনপথ বিভাগের জমিতে অবৈধভাবে গড়ে উঠা স্থাপনা উচ্ছেদে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ উঠেছে।
সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে প্রকৃত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ না করে ভাসমান ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ করার অভিযোগ করেছেন সুনামগঞ্জ-সিলেট সহাসড়ক যাত্রী স্বার্থ সংরক্ষণ কমিটি ও জেলা সিএনজি চালিত অটোরিকশা শ্রমিক ইউনিয়ন।
সংবাদ সম্মেলনে সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীর অপসারণ ও সরকারি আদেশ প্রতিপালন না করায় তাঁর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়।
বৃহস্পতিবার দুপুরে সুনামগঞ্জে শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা জগৎজোতি পাবলিক মিলনাতয়নে সংবাদ সম্মেলন করে সুনামগঞ্জ সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী জহিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করেন তাঁরা।
সংবাদ সম্মেলনে সুনামগঞ্জ-সিলেট সহাসড়ক যাত্রী স্বার্থ সংরক্ষণ কমিটির আহ্বায়ক অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল বলেন,‘ সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক সড়কের গোবিন্দগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধা চত্ত্বরের আশপাশে সওজের অন্তত শত কোটি টাকার জমিতে অবৈধ স্থায়ী স্থাপনা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে উচ্চ আদালত ও সওজ অধিদপ্তরের আদেশ মানছেন না সুনামগঞ্জ সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী। সড়কের ১০ মিটারের মধ্যে কোন স্থাপনা থাকবে না এমন নির্দেশনা থাকলেও দীর্ঘদিন ধরে স্থাপনা উচ্ছেদে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না সওজ কর্তৃপক্ষ। বার বার ভাসমান ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদের নামে ক্ষতিগ্রস্ত করা হচ্ছে। প্রকৃত স্থাপনা উচ্ছেদে সওজ কর্তৃপক্ষ রহস্যজনক ভূমিকা পালন করছে। এতে গোবিন্দগঞ্জ পয়েন্টে এলাকায় যানজট লেগেই থাকছে। জনগণের দুর্ভোগ কমছে না।’
জেলা সিএনজি চালিক অটোরিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আপ্তাব উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক মো. জমসেদ আলী বলেন,‘ সুনামগঞ্জ-সিলেট আঞ্চলিক সড়কের গোবিন্দগঞ্জ বীর মুক্তিযোদ্ধা চত্ত্বরের আশপাশে সওজের জমিতে স্থায়ী স্থাপনা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নির্মাণকারীদের কাছ থেকে নিয়মিত মাসোয়ারা নিচ্ছে সওজের লোকজন। সড়কের পাশের খালের উপর থেকে স্থাপনা উচ্ছেদ করা হচ্ছে না। রাস্তায় দুর্ভোগ ও প্রতিবন্ধকতার কারণে বাহার উদ্দিন নামের একজন ঠেলা শ্রমিক দুর্ঘটনার শিকার হয়ে মারা গেছেন। ঠেলা গাড়ি শ্রমিকের মৃত্যুর জন্য দায়ী সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী। কারণ সড়কের পাশের কোন স্থাপনা থাকবে না মর্মে আদালতের নির্দেশনা রয়েছে। এছাড়াও জেলা সমন্বয় সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গোবিন্দগঞ্জ পয়েন্টে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের সুপারিশ থাকলেও তা অনুসরণ করছেন না সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী।’
তবে সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশী মো. জহিরুল ইসলাম তাঁর বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে বলেন,‘ অবৈধ স্থাপনা নির্মাণকারীর কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নেওয়ার অভিযোগ মোটেও সঠিক নয়। আমাদের সার্ভেয়ারের সহযোগিতায় সওজের জায়গাতে যেসব স্থাপনা রয়েছে সেসব চিহ্নিত করে উচ্ছেদ করা হয়েছে। সওজের জায়গায় অবৈধ স্থাপনা রয়েছে সুনির্দিষ্টভাবে কেউ অবগত করলে আমরা অবশই উচ্ছেদ করব। উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত আছে। সওজের জমিতে অবৈধ স্থাপনা থাকলে অবশ্যই তা উচ্ছেদ করা হবে। ’

সংবাদটি শেয়ার করুন