• ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ৯ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

সৈদেরগাঁও ইউপি কার্যালয়ে হামলার ঘটনা আপোষে নিস্পত্তি

Daily Jugabheri
প্রকাশিত আগস্ট ২৯, ২০২১
সৈদেরগাঁও ইউপি কার্যালয়ে হামলার ঘটনা আপোষে নিস্পত্তি
নিজস্ব সংবাদদাতা, ছাতক :
সুনামগঞ্জের ছাতকে গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুর, বঙ্গবন্ধুর ছবি সম্বলিত ব্যানার ছেড়াসহ সৃষ্ট ঘটনা আপোষে নিস্পত্তি হয়েছে। রোববার (২৯ আগস্ট) ইউনিয়ন পরিষদ হল রুমে সাবেক ও বর্তমান জনপ্রতিনিধিসহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে সৃষ্ট ঘটনা নিস্পত্তি হয়। সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সুন্দর আলীর সভাপতিত্বে বৈঠকে বক্তব্য রাখেন, ছাতক উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরি বকুল, সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য আবদুস সহিদ মুহিত, গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান আখলাকুর রহমান, এ্যাডভোকেট আবুল কালাম, এ্যাডভোকেট আবুল হাসান, ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন, মুজিবুর রহমান, আবুল লেইছ কাহার, মাস্টার মাফিজ আলী, রুহুল আমীন, শামীম আহমদ, ছাদিকুর রহমান, রইছ আলী, হুসাইন আহমদ লনি মেম্বার ও ছায়াদ আহমদ।
তাদের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে বৈঠকের সভাপতির মাধ্যমে সৃষ্ট ঘটনাটি আপোষে নিস্পত্তি করে দেয়া হয়। এসময় ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডের সাবেক ও বর্তমান জনপ্রতিনিধি ছাড়াও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
প্রসঙ্গত, গত (২৫ আগস্ট) বিকেলে উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আখলাকুর রহমানের তকিপুরস্থ বাড়ির সম্মুখে রেলওয়ের একটি পুকুরের নতূন লিজের মালিকানা নিয়ে চেয়ারম্যান আখলাক ও ছায়াদ আহমদ পক্ষদ্বয়ের মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে ওইদিন ছায়াদ পক্ষের বিরুদ্ধে ইউনিয়ন কার্যালয়ে হামলা, ভাঙচুর ও বঙ্গবন্ধুর ছবি সম্বলিত ব্যানার ছেড়ার অভিযোগ উঠে।
খবর পেয়ে ছাতক সার্কেল এএসপি বিল্লাল হোসেনসহ ছাতক থানার ওসি (তদন্ত)সহ একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। শুরু হয় দু’পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব। এ নিয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে ইউপি চেয়ারম্যান আখলাকুর রহমান ও গোবিন্দনগর গ্রামের ছায়াদ আহমদের পাল্টা পাল্টি বক্তব্য পাওয়া যায়। এক পর্যায়ে সৃষ্ট ঘটনাটি আপোষে নিস্পত্তির লক্ষে সাবেক ও বর্তমান জনপ্রতিনিধির পাশাপাশি এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা চেষ্টা অব্যাহত রাখেন।
অবশেষে গত (২৮ আগস্ট) বিকেলে ইউনিয়নবাসীর আহবানে ইউনিয়ন পরিষদ হল রুমে সাবেক চেয়ারম্যান সুন্দর আলীর সভাপতিত্বে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় পরবর্তী বৈঠকের দিন-তারিখ নির্ধারণ হয় রোববার (২৯ আগস্ট)। বৈঠকে উভয় পক্ষের উপস্থিতিতেই সৃষ্ট ঘটনার নিস্পত্তি ঘটে।
সৃষ্ট ঘটনা আপোষে নিস্পত্তি হয়েছে বলে সত্যতা নিশ্চিত করেছেন গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আখলাকুর রহমান ও গোবিন্দনগর গ্রামের ছায়াদ আহমদ।
সংবাদটি শেয়ার করুন