• ২৪শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ১৮ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

দক্ষিণ সুরমার কদমতলীতে হোটেল কামরান থেকে অস্ত্রসহ খুনের আসামী গ্রেফতার, অস্ত্র মামলায় আসামী ২

Daily Jugabheri
প্রকাশিত অক্টোবর ২১, ২০২১
দক্ষিণ সুরমার কদমতলীতে হোটেল কামরান থেকে অস্ত্রসহ খুনের আসামী গ্রেফতার, অস্ত্র মামলায় আসামী ২

দক্ষিণ সুরমা প্রতিনিধি : সিলেট নগরীর দক্ষিণ সুরমার মুক্তিযোদ্ধা চত্বরে হোটেল কামরান থেকে অস্ত্রসহ রনি মির্জা খুনের এক আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।  গতকাল বিকেল সোয়া চারটার দিকে দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ এ অভিযান চালিয়ে কামরান হোটেলের ২১৯ নং কক্ষ থেকে ১টি দেশীয় তৈরী পাইপগানসহ মো হারুন অর রশিদ নামের একজনকে আটক করে। মো. হারুন অর রশিদ গত ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, (খুনের মামলা নং ০৯/২৭৬) দক্ষিণ সুরমার কামরান মির্জার ছেলে রনি মির্জা খুনের আসামী।  তবে প্রধান আসামী মুহাম্মদ মিসবাহ আহমদকে এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় গতকাল রাতে এসআই রিপন দাস বাদী হয়ে দক্ষিণ সুরমা থানায় ২ জনের নাম উল্লেখ করে অস্ত্র আইনে ১টি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১৭, তারিখ: ২০/১০/২০২১ ইং। মামলার আসামীরা হলেন- সিলেট জেলার দক্ষিণ সুরমা থানার ভার্থখলা এলাকার সি ব্লকের ৩ নং রোডের স্বর্ণালী ১২২ নং বাসার মোঃ এনামুল হকের পুত্র মোঃ হারুন অর রশিদ এবং সিলেট জেলার দক্ষিণ সুরমা থানার বরইকান্দি এলাকার সুনামপুর গ্রামের মৃত আব্দুল মুতলিবের পুত্র মুহাম্মদ মিসবাহ আহমেদ।
পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল বিকেল সোয়া চারটার দিকে দক্ষিণ সুরমা থানার এসআই রিপন দাসের নেতৃত্বে একদল পুলিশ মুক্তিযোদ্ধা চত্বরে হোটেল কামরানে অভিযান চালায়। এসময় তারা হোটেলের ২১৯ নং কক্ষে তল্লাশী চালিয়ে ১টি দেশীয় তৈরী পাইপগানসহ মোঃ হারুন অর রশিদকে আটক করে।
আটক হারুন অর রশিদ রনি মির্জা খুনের ঘটনায় দুই নম্বর আসামী। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে হারুন জানায়, এই অস্ত্রের মালিক রনি খুনের প্রধান আসামী মুহাম্মদ মিসবাহ আহমেদ।

এ ব্যাপারে মামলার বাদী এসআই রিপন দাস জানান, আসামীগণের বিরুদ্ধে তাদের কাছে তথ্য ছিল। আসামী হারুন অর রশিদ একটি হত্যা মামলার আসামী ও তার সহযোগী মুহাম্মদ মিসবাহ আহমেদ গোপনে অস্ত্র রেখে এলাকায় ছিনতাই সহ নানা ধরনের অপকর্ম করে  আসছিল। অভিযানে আসামী হারুণ অর রশিদকে আটক করতে পারলেও অন্য আসামী মুহাম্মদ মিসবাহ আহমেদকে এখনও আটক করা যায়নি। তবে তাকে আটক করতে সম্ভাব্য সব জায়গায় পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। যথাশীঘ্র সম্ভব তাকে আটক করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।
মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান জানান, আসামীগণ হত্যা ও ছিনতাইর সাথে জড়িত। পলাতক আসামী মুহাম্মদ মিসবাহ আহমেদকে আটক করতে পুলিশ তৎপর রয়েছে। উদ্ধারকৃত অস্ত্র জব্দ করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন