• ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১৩ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ১৬ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

এবার লক্ষ্য উন্নত দেশ : প্রধানমন্ত্রী

Daily Jugabheri
প্রকাশিত নভেম্বর ২৮, ২০২১
এবার লক্ষ্য উন্নত দেশ : প্রধানমন্ত্রী

যুগভেরী ডেস্ক
স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ার স্বীকৃতি পাওয়ার পর ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত করার লক্ষ্য নিয়ে এগোনোর তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
জাতীয় সংসদের চলতি অধিবেশনের সমাপনী দিন রোববার সংসদ নেতার বক্তব্যে তিনি এ তাগিদ দেন।
বক্তব্যে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের যাত্রা সহজ ছিল না বলে উল্লেখ করেন সরকারপ্রধান।
তিনি বলেন, ‘এখন আমাদের মূল লক্ষ্য একটি সামনে আছে। ২০৪১ সালের মধ্যে যেন বাংলাদেশ উন্নত, সমৃদ্ধ দেশ হয়, সে লক্ষ্য অর্জন করা।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একটি বিষয়ে আজ গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা করব। প্রকৃতপক্ষে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পর দীর্ঘ সময় ধরে আওয়ামী লীগ সরকারে ২০০৮ এর নির্বাচনি ইশতেহারে আমরা ঘোষণা দিয়েছিলাম বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে। রূপকল্প ২০২১ আমরা ঘোষণা দেই। তারই ভিত্তিতে প্রেক্ষিত পরিকল্পনা প্রণয়ন করি ২০১০ থেকে ২০২০ পর্যন্ত। সুপরিকল্পিতভাবে দেশের উন্নয়নে আমরা ব্যাপক কাজ করি। একটি লক্ষ্য স্থির করে কোনো দেশ যদি এগিয়ে যায়, তাহলে সেটা অর্জন করা সম্ভব। সেটা আমরা প্রমাণ করেছি।
‘২৪ নভেম্বর নিউইয়র্ক সময় সকাল ১০টা, তখন বাংলাদেশ সময় সকাল ৮টা। সে সময় জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনের ৭৬তম অধিবেশনে ৪০তম সভায় সর্বসম্মতিক্রমে বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ ক্যাটাগরি থেকে উত্তরণের ঐতিহাসিক রেজুলেশন গৃহীত হয়। এ প্রস্তাব গ্রহণের মাধ্যমে আমরা এলডিসি (স্বল্পোন্নত দেশ) থেকে উত্তরণের প্রক্রিয়া আমাদের সম্পন্ন হলো।’
তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই আমরা কাজ করে যাচ্ছিলাম দেশের মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে। আজকে আমরা স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে যে গ্র্যাজুয়েশন, এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। এটা এত তাড়াতাড়ি হয়নি। এটাও মনে রাখতে হবে।
‘আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর থেকেই আমরা ২০০৯ সাল থেকে যে পরিকল্পনা নিয়েছি এবং তা বাস্তবায়ন করেছি। বাংলাদেশের দারিদ্র্যমুক্তি, মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নতি, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন, বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধি, রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন কাজ আমরা করেছি এবং খুব পরিকল্পিতভাবে।’
পদে পদে প্রতিবন্ধকতার মুখে পড়ার কথা জানিয়ে সংসদ নেতা বলেন, ‘বারবার জনগণ ভোটে নির্বাচিত করেছে বলেই এ উত্তরণ সম্ভব হয়েছে।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘এটা বলার অপেক্ষা রাখে না, এই কাজগুলো যে আমরা খুব সহজভাবে করতে পেরেছি, তা না। আমরা দেশের জনগণের জাতীয় জীবনের সার্বিক উন্নয়নের জন্য প্রচেষ্টা চালিয়েছি। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের নেতৃত্বে মানুষের সে গৌরবজনক যাত্রা শুরু হয়।
‘আমরা ২০১৮ সালে প্রথম জাতিসংঘের যে কমিটি-সিডিপি, বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের সুপারিশ করে। আমরা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে যে বারবার সরকারে আসতে পেরেছি, তার ফলে যে উন্নতি আমরা করতে পেরেছি, তারই ফসল হচ্ছে এ স্বীকৃতি।’
তিনি বলেন, ‘জাতিসংঘের নিয়ম অনুযায়ী এলডিসি উত্তরণের জন্য সিডিপি পরপর দুবার ত্রিবার্ষিক পর্যালোচনা করে। এতেও বাংলাদেশ আমাদের অর্জিত মানদ- ধরে রাখতে সক্ষম হই। কোভিড-১৯-এর প্রকোপে সারা বিশ্বের অর্থনীতিতে মন্দা দেখা দেয়, বাংলাদেশেও। এরপরেও আমরা আমাদের অর্জনগুলো ধরে রাখি এবং ক্ষেত্রবিশেষে উন্নত করি।
‘২০২০ থেকে ২০২১ পর্যন্ত জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী অর্থাৎ মুজিববর্ষ। ২০২১ আমাদের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী। এ সময় এ অর্জন এটা আমাদের জন্য অনেক গৌরবের। বাঙালি জাতির জন্য বিরল সম্মান অর্জন। বিশ্বসভায় বাঙালি জাতির জন্য এক বিরল উত্তরণ।’
সরকারপ্রধান বলেন, ‘২০০৮ সালের নির্বাচনি ইশতেহারে আওয়ামী লীগঘোষিত রূপকল্প ২০২১ এবং এর আলোকে আমরা যে পরিকল্পনাগুলো পরপর নিয়েছি, সে সময় প্রকৃতপক্ষে অনেকে ধারণাই করতে পারেনি যে, বাংলাদেশ এ ধরনের অর্জন করতে পারে, কিন্তু সুপরিকল্পিত লক্ষ্য নিয়ে আমরা এগিয়েছি বলেই এটা সম্ভব হয়েছে। আশু করণীয় কী, সেটা নিয়েও কিন্তু আমরা অনেক কাজ করেছি।
‘অনেক সমালোচনার সম্মুখীন হতে হয়েছে। তারপরেও আমরা জানি এটার একটা ফলাফল বাংলাদেশের মানুষ পাবে। যেমন: রেন্টাল পাওয়ার প্ল্যান্ট থেকে শুরু করে যখন বিদ্যুৎকেন্দ্র করতে গেছি, অনেক সমালোচনা হয়েছে। কিন্তু আমরা সমালোচনায় কান দেইনি, কারণ আমরা জানি, এ দেশটাকে আমরা চিনি।’ তিনি বলেন, ‘অভীষ্ট লক্ষ্য স্থির করেই আমরা কাজ করেছি। দেশে উন্নয়ন কাঠামো গড়ে তোলা এবং দীর্ঘমেয়াদি আশু করণীয় স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করে আমরা কাজ করেছি।’
সরকারের পরিকল্পনা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘২০২১ থেকে ২০৪১ পর্যন্ত লক্ষ্য রেখে আমরা আরেকটি প্রেক্ষিত পরিকল্পনা আমরা প্রণয়ন করেছি। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ যাতে একটি উন্নত দেশ হয়, সেই পরিকল্পনাই আমরা হাতে নিয়েছি। ২০৩০ সালের মধ্যে জাতিসংঘ ঘোষিত স্থায়ী উন্নয়নের কাজও আমরা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। বাংলাদেশের জনগণের কাছে আমি কৃতজ্ঞ।
‘এটি এ কারণে ২০০৮ এর নির্বাচন, এরপর ২০১৪ এবং ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচন, প্রতিটিতে তারা নৌকায় ভোট দিয়েছেন। আমাদের জয়যুক্ত করেছেন এবং আমরা জনগণের সেবা করার সুযোগ পেয়েছি। এর ফলে আজকে দীর্ঘদিন জনগণের সেবা করার সুযোগ পেয়েছি বলে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তবে এ কথা ঠিক, এ যাত্রাপথ কখনো সুগম ছিল না। অনেক প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হতে হয়েছে, অনেক সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে, অনেক অপপ্রচারের শিকার হতে হয়েছে। আমরা দেখেছি আন্দোলনের নামে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করা, পেট্রলবোমা মারা, চলন্ত বাস-স্কুটার থেকে মানুষকে টেনে বের করে পেট্রল দিয়ে, আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মেরেছে। সেই অগ্নিসন্ত্রাসের শিকার আমাদের একজন সংসদ সদস্যও আজ এখানে উপস্থিত আছেন।
‘ঠিক এভাবে রাস্তা কেটে ফেলা, হাজার হাজার গাছ কেটে ধ্বংস করা, মানুষ হত্যা, তারপর হরতাল-অবরোধ। অবরোধ মনে হয় এখনও বিএনপি তুলে নেয়নি। সেই অবরোধসহ নানা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয়েছে উন্নয়নের পথে বাধা সৃষ্টি করার জন্য। পাশাপাশি প্রাকৃতিক দুর্যোগ। নানা ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগও কিন্তু আমাদের মোকাবিলা করতে হয়েছে। এটা হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তনের ফল।’
তিনি বলেন, ‘এরপরে আসল করোনাভাইরাস। করোনার মধ্যেও সারা বিশ্বের অর্থনীতি যেখানে স্থবির, সেখানে আমরা চেষ্টা করেছি অর্থনীতি সচল রাখতে। আমরা প্রায় এক লক্ষ ৮৩ কোটি টাকার প্রণোদনা দিয়ে নগদ অর্থ সরবরাহ একেবারে গ্রামের তৃণমূল মানুষকে দিয়েছি।
‘আমরা অন্য সব বাদ দিয়ে মানুষের হাতে যেন টাকা যায়, মানুষের হাতে যেন খাবার যায়, সেটি নিয়ে ব্যাপক কর্মসূচি পালন করেছি। আমাদের কৃষক, শ্রমিক, মেহনতি মানুষ, চাকরীজীবী, শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী সকলের যাতে কোনো অসুবিধা না হয়, এ জন্য প্রণোদনা প্যাকেজের মাধ্যমে সহযোগিতা করেছি।’
সরকারপ্রধান বলেন, ‘শুধু বাজেট থেকে বা সরকারি কোষাগার থেকে না প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকেও কয়েক শ কোটি টাকা মানুষের কাছে বিলিয়েছি। অর্থাৎ মানুষকে সব ধরনের সহযোগিতা করা, এটা আমরা করতে পেরেছি।
‘এর ফলাফল হলো এই অতিমারির মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনীতি গতিশীল থেকেছে। এখন আমাদের মূল লক্ষ্য একটি সামনে আছে। ২০৪১ সালের মধ্যে যেন বাংলাদেশ উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হয়, সে লক্ষ্য অর্জন করা।’

সংবাদটি শেয়ার করুন