• ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ১৫ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

জগন্নাথপুরে প্রতীক বরাদ্দের আগেই প্রচারণায় প্রার্থীরা

Daily Jugabheri
প্রকাশিত ডিসেম্বর ৩, ২০২১
জগন্নাথপুরে প্রতীক বরাদ্দের আগেই প্রচারণায় প্রার্থীরা

নিজস্ব সংবাদদাতা, জগন্নাথপুর
নির্বাচনী প্রতীক বরাদ্দের আগে প্রচার চালানোর নিয়ম না থাকলেও সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ইউপি নির্বাচনের প্রার্থীরা সে নিয়ম মানছেন না। তারা পুরোদমে প্রচারে নেমে গেছেন।
চতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচনে আগামী ২৬ ডিসেম্বর জগন্নাথপুর উপজেলার সাতটি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ হবে। ইউনিয়নগুলো হচ্ছে—কলকলিয়া, পাটলী, চিলাউড়া-হলদিপুর, রানীগঞ্জ, সৈয়দপুর-শাহারপাড়া, আশারকান্দি ও পাইলগাঁও।
এসব ইউনিয়নে নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের পর প্রার্থী বাছাই প্রক্রিয়াও শেষ হয়েছে। আগামী ৬ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহার এবং ৭ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দের কথা রয়েছে। কিন্তু নির্বাচনী আচরণবিধি অনুযায়ী প্রতীক বরাদ্দের আগে প্রচার চালানোয় নিষেধাজ্ঞা থাকলেও প্রার্থীরা তফসিল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে মাঠে নেমে পড়েছেন। নির্বাচনী নীতিমালাকে কোনো তোয়াক্কা করছেন না তারা। প্রকাশ্যে বিপুলসংখ্যক লোকজন নিয়ে প্রচার, গণসংযোগ, সভা, সমাবেশ চালিয়ে যাচ্ছেন। উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট ও সমর্থন চেয়ে বেড়াচ্ছেন। সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত প্রচারে ব্যস্ত তারা।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক চেয়ারম্যান প্রার্থী বলেন, ‘সব প্রার্থীই প্রচার চালাচ্ছেন। আমিও যদি না চালাই তবে ভোটের মাঠে পিছিয়ে পড়ব।’
নির্বাচন কার্যালয় সূত্র জানায়, আসন্ন ইউপি নির্বাচনে জগন্নাথপুরের সাতটি ইউনিয়নে ৪০ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এর মধ্যে বাছাইয়ে দুজন বাতিল হয়েছেন। এখন ৩৮ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী আছেন মাঠে। তারা হলেন— কলকলিয়ায় আলাল হোসেন রানা (আ. লীগ), রফিক আহমদ (স্বতন্ত্র) ও আব্দুস সোবহান (স্বতন্ত্র); পাটলীতে সিরাজুল হক (স্বতন্ত্র), আঙ্গুর মিয়া (আ. লীগ), আব্দুল হাই আজাদ (স্বতন্ত্র), এনামুল ইসলাম (স্বতন্ত্র) ও আতিকুর রহমান আতিক (স্বতন্ত্র); চিলাউড়া-হলদিপুরে আব্দুল গফুর (আ. লীগ), আরশ মিয়া (স্বতন্ত্র), শহিদুল ইসলাম বকুল (স্বতন্ত্র), আব্দুল মোমিন (স্বতন্ত্র), ইলিয়াস মিয়া (স্বতন্ত্র) ও মুজিবুর রহমান (স্বতন্ত্র); রানীগঞ্জে শহিদুল ইসলাম রানা (স্বতন্ত্র), ছদরুল ইসলাম (আ. লীগ), আমান উল্লাহ লেছু (স্বতন্ত্র), এম সিরাজুল ইসলাম আশিক (স্বতন্ত্র) ও ছালিক মিয়া (স্বতন্ত্র); সৈয়দপুর-শাহারপাড়ায় আবুল হাসান (আ. লীগ), মুকিতুর রহমান (স্বতন্ত্র), মকসুদ মিয়া কোরেশী (স্বতন্ত্র), আজহার কামালী (স্বতন্ত্র), তানভীর আহমদ কামালী (স্বতন্ত্র) ও আজাদ হোসেন চৌধুরী (স্বতন্ত্র); আশারকান্দিতে আলহাজ আব্দুস সত্তার (আ. লীগ), আইয়ুব খান (স্বতন্ত্র), সৈয়দ জমিরুল হক (স্বতন্ত্র), আহমেদ হোসাইন (স্বতন্ত্র), গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী পারভেজ (স্বতন্ত্র), লেবু মিয়া (স্বতন্ত্র), শাহ তারেক রহমান (স্বতন্ত্র), মোহাম্মদ আলী (স্বতন্ত্র) ও আবু বক্কর খান (স্বতন্ত্র); পাইলগাঁওয়ে মুখলিছ মিয়া (স্বতন্ত্র), সুন্দর উদ্দিন (আ. লীগ), ফারুক মিয়া (স্বতন্ত্র) ও দবিরুল ইসলাম (স্বতন্ত্র)। এ ছাড়া সাতটি ইউনিয়নে ২৪০ জন সাধারণ সদস্য এবং সংরক্ষিত পদে নারী প্রার্থী ৮৯ জন।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার মুজিবুর রহমান বলেন, আচরণবিধি মেনে চলার জন্য আমরা এরমধ্যে প্রার্থীদের বলে দিয়েছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন