• ১লা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ২০শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

নগরীর জিন্দাবাজারে আওয়ামীলীগ ও এলডিপি নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষে পথচারী নিহত, ১৩ এলডিপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

Daily Jugabheri
প্রকাশিত মার্চ ২৬, ২০২২
নগরীর জিন্দাবাজারে আওয়ামীলীগ ও এলডিপি নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষে পথচারী নিহত, ১৩ এলডিপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার: আওয়ামীলীগ ও এলডিপি নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষে ১ জন নিহত হয়েছেন। নিহতের নাম ফরিদ উদ্দিন। তিনি সিলেট নগরীর শিবগঞ্জের বাসিন্দা বলে জানা গেছে। আজ দুপুর ১২টার দিকে নগরীর জিন্দাবাজার এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে রাজনৈতিক দলগুলো বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করে। মহানগর আওয়ামীলীগ নগরীর চৌহাট্টা থেকে স্বাধীনতা দিবসের বিজয় র‌্যালী নিয়ে শহর প্রদক্ষিণকালে জিন্দাবাজার এসে মহানগর এলডিপির বিজয় র‌্যালীর মুখোমুখি হয়। মহানগর এলডিপি’র র‌্যালী বন্দরবাজার থেকে চৌহাট্টার দিকে যাচ্ছিল। কিন্তু জিন্দাবাজারে দুই র‌্যালি মুখোমুখি হলে উভয় পক্ষের মধ্যে বাকবিতন্ডার সৃষ্টি হয়। তখন আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা ধাওয়া করলে এলডিপি নেতৃবৃন্দ তা প্রতিহত করেন। সাথে সাথে শুরু হয় সংঘর্ষ। তখন ককটেল বিস্ফোরণ ও গুলির শব্দে এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

প্রায় আধা ঘন্টা যাবত এ সংঘর্ষ চলতে থাকে। খবর পেয়ে সিলেট কোতোয়ালী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলে সংঘর্ষকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে বিভিন্ন অলি গলি দিয়ে পালিয়ে যায়। পুলিশ মারাত্মক আহত অবস্থায় ফরিদ উদ্দিনসহ বেশ কয়েকজনকে উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও ফরিদ উদ্দিনকে মৃত ঘোষণা করেন। ফরিদ উদ্দিন কোন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী নয়। তিনি পথচারী ছিলেন বলে জানা গেছে। সংঘর্ষের পর থেকে এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। শহরজুড়ে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।
এ ঘটনায় রাতে এসআই ইব্রাহিম মাহফুজ বাদী হয়ে সিলেট কোতোয়ালী থানায় ১৩ জন এলডিপি নেতাকর্মীকে অভিযুক্ত করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলার আসামীরা হলেন- সিলেট মহানগর এলডিপির সভাপতি মোঃ কবির আহমদ, সিলেটের শাহপরান (রহ.) থানার পিরের চক গ্রামের মৃত আব্দুল খালিকের পুত্র এলডিপি শাহপরান থানা শাখার প্রচার সম্পাদক কামাল আহমদ, সভাপতি মোঃ মনিরুল ইসলাম, টিলাগড় এলাকার আজমত আলীর মহানগর এলডিপির সদস্য পুত্র করিম উদ্দিন, শিবগঞ্জ এলাকার লিয়াকত আলীর পুত্র মহানগর এলডিপির সদস্য রহিম উদ্দিন, শেখঘাট এলাকার মিজান আলীর পুত্র ফয়েজ উদ্দিন, মিরাবাজার এলাকার আক্রম আলীর পুত্র আহসান আলী, একই এলাকার মৃত আহমদ আলীর পুত্র নিয়াজ উদ্দিন, আম্বরখানা এলাকার মৃত হাসিম আলীর পুত্র রায়হান আহমদ, দাড়িয়াপাড়া এলাকার রহমত আলীর পুত্র শাহাদত হোসেন, জল্লারপাড় এলাকার রিয়াজ উদ্দিনের পুত্র আলী আক্কাস, একই এলাকার মৃত নিজাম উদ্দিনের পুত্র আলা উদ্দিন, মৃত হাসু মিয়ার পুত্র আহসান মিয়া।
এদিকে, উক্ত সংঘর্ষের জন্য মহানগর এলডিপি ও আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ একে অপরকে দায়ী করছে। তবে উভয় দলের নেতাকর্মীদের সাথে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও কাউকে পাওয়া যায়নি।
এ ব্যাপারে মামলার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন সিলেট কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। তিনি জানান, মামলার আসামীদের ধরতে পুলিশ ব্যাপক অভিযানে চালাচ্ছে। যথাশীঘ্র সম্ভব অভিযুক্তদের আটক করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন