• ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ , ১৪ই আশ্বিন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ১৪ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

কিনব্রিজ’র চলমান সংস্কার কাজ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্নের দাবী

Daily Jugabheri
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২৩
কিনব্রিজ’র চলমান সংস্কার কাজ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্নের দাবী

জনদুর্ভোগ লাগঘে সিলেট নগরির প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত, সুুরমা নদীর উপর নির্মিত কিনব্রিজ’র চলমান সংস্কার কাজ দ্রুততার সাথে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করার জোর দাবি জানিয়েছে সদর দক্ষিণ এলাকার ন্যায়সংগত দাবি আদায় ও সুষম উন্নয়ন তরান্বিত করার লক্ষ্যে গঠিত অরাজনৈতিক সংগঠন ‘সদর দক্ষিণ নাগরিক কমিটি, সিলেট’। গত (১৭ সেপ্টেম্বর) রোববার রাতে বাংলাদেশ রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজার (পূর্ব) বরাবরে দেয়া এক স্মারকলিপিতে এ দাবি জানানো হয়। সিলেট রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজারের মাধ্যমে দেয়া স্মারকলিপি স্টেশন ম্যানেজার মোহাম্মদ নুরুল ইসলামের অনুপস্থিতিতে গ্রহণ করেন স্টেশন মাস্টার আবু নাছের মোহাম্মদ রাসেল।
স্মারকলিপিতে বলা হয়, জনবহুল সিলেট মহানগরিকে বিভক্তকারী সুরমা নদীর উপর নির্মিত ‘কিনব্রিজ’ বয়সের ভারে অনেকটা ন্যুয়ে পড়ায় জনসাধারণ ও যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে সরকারি নির্দেশে বাংলাদেশ রেলওয়ে গত ১৬ আগস্ট থেকে পরবর্তী ২ মাসের জন্য কিনব্রিজ দিয়ে যান ও জনসাধারণের চলাচল বন্ধ ঘোষণা করে সংস্কার কাজ শুরু করেছে। নির্দেশনা অনুযায়ী আগামী ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত ব্রিজের উপর দিয়ে সকল প্রকার চলাচল বন্ধ থাকার কথা। ব্রিজ বন্ধ করে দেয়ার ফলে নগরির উভয়পাড়ের জনগণের চলাফেরায় চরম ভোগান্তি দেখা দেয়। বিশেষ করে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী এবং রোগীদের যাতায়াতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে বেশী।
তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা হিসেবে সিলেট সিটি কর্পোরেশন ব্রিজের নিচ দিয়ে সুরমা নদীতে অস্থায়ী ঘাট তৈরী করে জনগণকে পারাপারের ব্যবস্থা করে দিলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় নিতান্ত-ই অপ্রতুল। শুধু তাই নয়, সামঞ্জস্যপূর্ণ ঘাট না থাকায় অস্থায়ী ঘাট ব্যবহারকারি জনসাধারণকে প্রতিনিয়ত দূর্ঘটনার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। কিন্তু সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী জনস্বার্থে ব্রিজের সংস্কার কাজ সম্পন্ন করাও অতীব প্রয়োজন।
স্মারকলিপিতে বলা হয়, সামাজিক দায়িত্ববোধ থেকে কিনব্রিজের সংস্কার কাজ সরেজমিনে দেখার জন্য সদর দক্ষিণ নাগরিক কমিটি’র নেতৃবৃন্দ সম্প্রতি কিনব্রিজ এলাকা পরিদর্শন করেন। এ সময় দেখা গেছে মাত্র ৩/৪ জন কর্মী ব্রিজে কাজ করছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এতো বড় ব্রিজ সংস্কারের জন্য রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ স্বল্পসংখ্যক কর্মী নিয়োজিত করেছে। এই কর্মী দিয়ে আগামী ৬ মাসেও সংস্কারকাজ সম্পন্ন হবে কি না, তা নিয়ে নগরবাসীর মধ্যে সংশয় দেখা দিয়েছে। তাই অতিরিক্ত লোকবল ও আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কিনব্রিজের সংস্কার কাজ দ্রুততার সাথে সম্পন্ন করার জোর দাবি জানানো হয়।
স্মারকলিপি প্রদানকালে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সদর দক্ষিণ নাগরিক কমিটি, সিলেট’র এডহক কমিটির সদস্য সচিব, সিটি কাউন্সিলর মোহাম্মদ আজম খান, সিনিয়র সদস্য আলহাজ্ব গোলাম কিবরিয়া হিরা, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা প্রেসক্লাব, সিলেট’র সভাপতি চঞ্চল মাহমুদ ফুলর, সদর দক্ষিণ নাগরিক কমিটি, সিলেট’র এডহক কমিটির সিনিয়র সদস্য মো. নজরুল হোসেন, আব্দুল মালেক তালুকদার, আলহাজ্ব মো. ফরিদুর রহমান, সেলিম আহমেদ শেমিম, হাজী মো. ফুল মিয়া, শাহ আহমদুর রব, জাহাঙ্গীর খান, নুরুল ইসলাম সুমন, দেলওয়ার হোসেন রানা, মো. ছয়েফ খান, এডভোকেট মামুন হোসেন, মো. ফখরুল হাসান, এমএইচ নিজাম, লাহিন আহমদ রুহেল, সোলেমান মিয়া, সামির খান, রেলওয়ে স্টাফ শহীদুল ইসলাম প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

সংবাদটি শেয়ার করুন